এ নির্বাচনের অধিকাংশেই তাণ্ডবলীলা চালাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ- রুহুল কবির রিজভী

জাতীয়

ঢাকা (২৮ ডিসেম্বর, ২০২০) : দেশের ২৪ টি পৌরসভার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ সোমবার। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেছেন, এ নির্বাচনের অধিকাংশেই তাণ্ডবলীলা চালাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

তিনি বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেব বিচার বিভাগের স্বাধীনতার কথা বলেছেন। তার নমুনা আপনারা দেখেছেন গতকাল শত শত কোটি টাকার দুর্নীতি আর পাচারের সঙ্গে জড়িত এমপি পাপুলের স্ত্রী ও কন্যা জামিন পেয়েছেন। অথচ মিথ্যা অভিযোগে এদেশের বারবার নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন দেওয়া হয় না। অথচ হত্যাকান্ডের আসামি, ক্যাসিনো কান্ডের হোতা, টাকা পাচার কান্ডের হোতাদের জামিন হয়। জামিন হয় না গণতন্ত্রকামী নেতাকর্মীদের। আইনের শাসন এখন আওয়ামী শাসনে পরিণত হয়েছে। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নয়, আওয়ামী বিচারপতিরা বিরোধী দল নির্মূল করতে বেপরোয়া স্বাধীনতা ভোগ করছেন।’

রিজভী বলেন, ‘আজ দেশব্যাপী ২৪টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই নির্বাচনগুলোও আগের অবস্থার মতোই রক্তপাত ও ডাকাতির নির্বাচন। এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যমতে প্রশাসনের সহায়তায় আওয়ামী সন্ত্রাসীরা অধিকাংশ পৌর নির্বাচনী এলাকায় তাণ্ডবলীলা চালাচ্ছে। সরকারের ‘‘হার্ড হিটিং’’ ইমেজ বজায় রাখতে ভোটারসহ বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর আক্রমণ চলছে বেপরোয়াভাবে।’

তিনি বলেন, ‘খুলনার চালনা পৌরসভায় সকাল থেকে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা কুরুক্ষেত্র বানিয়ে রেখেছে। বিএনপির এজেন্টদেরকে কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়েছে, তাদের ওপর পৈশাচিক আক্রমণ করে অনেকেই গুরুতর আহত করা হয়েছে। অধিকাংশ ভোটকেন্দ্র দখল করে নেওয়া হয়েছে। চালনা এম এম কলেজ ভোট কেন্দ্রে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর আওয়ামী সশস্ত্র ক্যাডাররা হামলা চালিয়ে কেন্দ্রটি দখল করে নিয়েছে।’

রিজভী বলেন, ‘পঞ্চগড় পৌরসভার নতুন বস্তি এলাকায় ধানের শীষের মেয়র প্রার্থীর প্রধান এজেন্ট ইউনুসসহ নেতাকর্মীদের ওপর আক্রমণ চালিয়ে তাদের গুরুতর করে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। প্রশাসন সেখানে নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে। কুড়িগ্রামে পৌর নির্বাচন শুরু হওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা ভোটকেন্দ্রগুলো দখল করে প্রশাসনের সহায়তায় দেদারসে নৌকা প্রতীকে সিল মারছে। ধানের শীষের এজেন্টদেরকে পুলিশ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীরা কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়েছে।’

এ সময় তিনি দাবি করেন, একতরফা নির্বাচনই হচ্ছে আওয়ামী লীগের চেতনা। আজ সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেবের কথাতেই বোঝা যায় যে, নির্বাচনে বিএনপি না আসুক, বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেই তারা প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছেন। কারণ বিএনপির অংশগ্রহণের কারণে তাদেরকে (আওয়ামী লীগ) বিজয়ী হতে ভোটকেন্দ্র দখল করতে হয়, নিশিরাতে নৌকায় সিল মেরে ব্যালট বাক্স ভরতে হয়, নির্বাচনে সহিংসতা করতে হয়, ভোটারদের ভয় দেখাতে হয়। ফলে তাদের স্বরূপ জনগণের সামনে উন্মোচিত হয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়ে। আর এই কারণেই ওবায়দুল কাদের সাহেবের বাকশালী চেতনা জাহির হয়ে পড়ে যে- বিএনপি কেন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। কারণ একতরফা নির্বাচনই হচ্ছে তাদের চেতনা। বন্দুকের জোরে গণতন্ত্রকে হত্যা করে দেশ থেকে সুষ্ঠু নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ওবায়দুল কাদের সাহেবরা এখন বাকশালী গণতন্ত্রের চর্চা করছেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *