চার ম্যাচ পর জয় পেল খুলনা

খেলা

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: খুলনার দেয়া ১৭১ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে তাইজুলের ঘূর্ণি বলে বিভ্রান্ত হয়ে ৫৬ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যায় সিলেট সিক্সার্স। এরপর পঞ্চম উইকেটে ৮১ রানের জুটি গড়ে দলকে খেলায় ফেরান নিকোলাস পুরান ও মোহাম্মদ নওয়াজ। তবে ৮ রানের ব্যবধানে নিকোলাস ও নওয়াজ আউট হলে ম্যাচ থেকে কার্যত ছিটকে যায় সিলেট। ২১ রানে জয় পায় খুলনা টাইটানস।
যাতে টানা চার ম্যাচে পরাজয়ের পর জয়ের মুখ দেখল খুলনা টাইটানস। নিজেদের নবম ম্যাচে দ্বিতীয় জয় পেল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বাধীন দলটি।
জয়ের জন্য শেষ দিকে সিলেটের প্রয়োজন ১৬ বলে ৩৪ রান। এমন অবস্থায় ডেভিড ওয়াইজের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন নিকোলাস পুরান। তার আগে ২১ বলে তিন চার ও এক ছক্কায় ২৮ রান করেন তিনি।
ঠিক পরের ওভারে ফেরেন দুর্দান্ত খেলতে থাকা মোহাম্মদ নওয়াজ। দলকে জয়ের স্বপ্ন দেখিয়ে যাওয়া নওয়াজ ফেরেন স্বদেশি জুনায়েদ খানের শিকার হয়ে। প্যাভেলিয়নে ফেরার আগে ৩৪ বলে দুই চার ও চার ছক্কায় ৫৪ রান করেন নওয়াজ।
শেষ ওভারে জয়ের জন্য সিলেটের প্রয়োজন ছিল ২৬ রান। ইয়াসির শাহের করা ওভারের দ্বিতীয় বলে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন অধিনায়ক সোহেল তানভির। শেষ তিন বলে প্রয়োজন ছিল ২৩ রান। জাকির আলী ও শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতে নামা নাসির হোসেনের পক্ষে আর কিছুই করার ছিল না। ২১ রানে জয় পায় খুলনা টাইটানস।
খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ১৭১ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের প্রথম বলেই বোল্ড ওপেনার লিটন কুমার দাস। শুভাশীষ রায়ের করা ডেলিভারিটি লিটনের ব্যাটে চুমু খেয়ে স্টাম্পে গিয়ে আঘাত হানে। মাত্র এক বল খেলেই সাজঘরে ফেরেন সিলেট সিক্সার্সের এই ওপেনার।
শূন্য রানে লিটন দাসের উইকেট হারিয়ে প্রাথমিক বিপর্যয়ে পড়ে যাওয়া সিলেটকে খেলায় ফেরানোর আগেই বিপদে পড়েন সাব্বির রহমান রুম্মন। দলীয় ৩২ রানে তাইজুল ইসলামের বলে ডেভিড ওয়াইজের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন সাব্বির। আগের ম্যাচে ৮৫ রান করা সাব্বির, এদিন ফেরেন মাত্র ১৩ রানে।
এরপর তাইজুলের তোপের মুখে পড়ে ২ রানের ব্যবধানে ফেরেন কাপালি ও আফিফ। সাজঘরে ফেরার আগে আফিফ করেন ২৪ বলে ২৯ রান। ১৬ বলে ১১ রান করেন কাপালি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *