তিতাস গ্যাস এর চার প্রকৌশলীকে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও কঠোর প্রতিবাদ জানিয়েছে –আইইবি

অপরাধ জাতীয় প্রচ্ছদ বাংলাদেশ

ঢাকা (২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০) : তিতাস গ্যাস টি এন্ড ডি কোং লি. এর চার প্রকৌশলীকে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা কঠোর প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রকৌশলীদের একমাত্র জাতীয় প্রতিষ্ঠান ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) একই সাথে তাদের দ্রুত সময়ের মধ্যে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিও করা হয়েছে।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে আইইবি কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের পক্ষে সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু), পিইঞ্জ. এই প্রতিবাদ নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

বিবৃতিতে ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু), পিইঞ্জ. বলেন, তিতাস গ্যাস টি এন্ড ডি কোং লি.-এর চারজন প্রকৌশলীকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়াই, ফৌজদারি আসামি না হওয়া সত্ত্বেও এবং যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ব্যতিরেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের হাতকড়া পরিয়ে গ্রেফতার করে এবং দুই দিনের রিমান্ডও মঞ্জুর করা হয়। যা সারাদেশের প্রকৌশলী সমাজে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। এই ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ নিন্দা জানাচ্ছি। একই সাথে এইসব প্রকৌশলীদের দ্রুত সময়ের মধ্যে নিঃশর্ত মুক্তি দেয়ার আহবান জানাচ্ছি। সেই সাথে এই চার প্রকৌশলীকে সামাজিক পারিবারিকভাবে হেনস্তা না করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি। তা না হলে আইইবি পরবর্তীতে পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

বিবৃতিতে আইইবি সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু), পিইঞ্জ. বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনায় করোনা মহামারীকালের দুর্যোগ মোকাবিলায় সারাদেশে চিকিৎসক স্বাস্থ্যকর্মীদের পাশাপাশি প্রকৌশলীরাও সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে কার্য সম্পাদন করছেন। করোনার লকডাউনকালীন সময় থেকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি সেক্টরসহ প্রতিটি সেক্টরে দেশের প্রকৌশলীরা নিরলসভাবে পরিশ্রম করে দুর্যোগ মোকাবেলায় বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। এই দায়িত্ব পালন করতে যেয়ে আমাদের অনেক প্রকৌশলী মৃত্যুবরণও করেছেন। আবার অনেক প্রকৌশলী অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীনও রয়েছেন।

বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের ঘোষিত ভিশন২০২১, ভিশন২০৪১ এবং ডেল্টাপ্ল্যান২১০০ বাস্তবায়নে সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে প্রকৌশলীরা দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন এবং ভবিষ্যতেও সে ধারা অব্যাহত থাকবে। কিন্তু আমরা অত্যন্ত পরিতাপের সাথে লক্ষ্য করছি যে দেশে সুনামের সাথে কর্মরত প্রকৌশলীরা বিভিন্নভাবে শারীরিক নির্যাতন, মানসিক অত্যাচার, গ্রেফতার, রিমান্ড এমনকি হত্যাকাণ্ডের স্বীকারও হচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *