ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস জানিয়েছেন – সমস্যা সরেজমিনে দেখেই সমাধানের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে

জাতীয় প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজধানী

ঢাকা (৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০) : সমস্যাগুলো সরেজমিনে দেখেই সমাধানের সিদ্ধান্ত নেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। আজ বুধবার দুপুরে রাজধানীর লালকুঠি ৪৩ নং ওয়ার্ডের লালকুঠি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন।

এর আগে তিনি নগরীর ৭ নম্বর ওয়ার্ডে কর্পোরেশনকে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দকৃত ২.৪২ একর জায়গা, রাস্তাঘাট ও বাজার, মানিকনগর মডেল হাই স্কুল পরিদর্শন এবং ৪৯ নং ওয়ার্ডে সিটি করপোরেশন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, কর্পোরেশনের ১০ তলা পরিচ্ছন্ন ক্লিনার ভবন নির্মাণ কাজ ও গোলাপবাগ মাঠ পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে তিনি মানিকনগর মডেল হাই স্কুলের প্রাঙ্গণে একটি গাছের চারা রোপণ করেন এবং গোলাপবাগ মাঠের চলমান উন্নয়ন কাজ শেষ করার তাগিদ দেন।

পরিদর্শনকালে ডিএসসিসি মেয়রের সাথে কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী, প্রধান প্রকৌশলী রেজাউর রহমান, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক সহ কর্পোরেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং স্থানীয় কাউন্সিলরগণ উপস্থিত ছিলেন।

ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস এ সময় বলেন, লালকুঠি, নর্থব্রুক হল আমাদের ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা। আমরা ঢাকার ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার করব, সে লক্ষ্যে লালকুটিকে আমরা পুনরুদ্ধার করতে চাই। লালকুঠি পুনরুদ্ধারে এরই মধ্যে আমরা কার্যক্রম শুরু করেছি। সে কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আজকে সরেজমিনে এই লালকুঠি পরিদর্শন।

এ সময় সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন, একটি সুন্দর স্থাপত্যশৈলীতে লালকুঠি নির্মাণ করা হয়েছে। আমরা সেটাকে পুনরুদ্ধার করব। আমরা এখানে অনুষ্ঠান করব, সামনের নদী থেকে যাতে লালকুঠি দেখা যায় সে ব্যবস্থা করব, আমরা টার্মিনাল সরিয়ে ফেলার কথা বলব। এখানে অন্যান্য যে আগ্রাসী অবকাঠামোগুলো করা হয়েছে আমরা সেগুলো ভেঙ্গে ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনব।

মোটর ও ইঞ্জিনচালিত রিকসা নিষিদ্ধ করার পরেও তা রাস্তায় চলছে, সে বিষয়ে কি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, আমাদের নিবন্ধন কার্যক্রম চলছে। আমরা ইঞ্জিন মোটরচালিত এসব অযান্ত্রিক বাহন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছি। যদি তারা স্বপ্রণোদিত হয়ে এগুলো বন্ধ না করে, তাহলে আমরা সুনির্দিষ্ট তারিখ নির্ধারণ করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেব। আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *