ভোলার মেঘনা-তেঁতুলিয়া নদীতে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

জীবনযাপন জেলার-খবর প্রচ্ছদ

ঢাকা (১২ অক্টোবর ২০২০) : মা ইলিশ রক্ষা অভিযানের আগমুহূর্তে ভোলার মেঘনাতেঁতুলিয়া নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ। তাই জেলার ছোট বড় শতাধিক মাছ ঘাটে বেড়েছে কর্মচাঞ্চল্য। নাওয়াখাওয়া ভুলে ইলিশা ধরা আর মোকামে চালান করা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন জেলে মাছ ব্যবসায়ীরা।

নদীতে জাল ফেলে যে মাছ পাচ্ছেন তা আড়তে রেখে আবার ছুটছেন নদীতে। নিষেধাজ্ঞার আগ মুহূর্তে ইলিশের দেখা মিলেছে তাদের জালে। দীর্ঘ অপেক্ষার কিছুটা অবসান ঘটিয়ে ঘাটগুলোতে ফিরে এসেছে কর্ম ব্যস্ততা। এই ঘাটগুলোতে গত কয়েক সপ্তাহ আগেও জেলে ব্যবসায়ীদের কোনো কর্ম তৎপরতা ছিল না। ভরা মৌসুমে সাগরে প্রচুর ইলিশ মিললেও ভোলার মেঘনাতেতুলিয়া নদীতে ইলিশের দেখা পায়নি জেলেরা।

এদিকে ইলিশের দাম বেশি হওয়ায় জেলেরা যেমন লাভবান হচ্ছেন তেমনি মৎস্য আড়ৎদারদেরও লোকসান পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা চলছে।

ইলিশা ঘাটের জেলে ইসমাইল মাঝি, খলিল মাঝিসহ ১০১২জন জেলে জানান, প্রতি বছরেই আকাল কাটিয়ে নদীতে যখন ইলিশ আসতে শুরু করে তখনই নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়। এতে করে আমরা ক্ষতির মধ্যেই থেকে যাচ্ছি। তাই অভিযান আরো ১৫ দিন পিছিয়ে দেয়ার দাবি জানান তারা। সেই সঙ্গে সব জেলেকে সরকারি সহায়তার চাল দেয়ার দাবিও করেন তারা।

এদিকে শেষ মুহূর্তে মেঘনাতেঁতুলিয়া নদীতে কাঙ্ক্ষিত ইলিশের দেখা মেলায় জেলেরা খুশি। কিন্তু দুদিন পরেই আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে ইলিশের প্রজনন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞার কারণে মহাজনের ধারদেনা পরিশোধ নিয়ে হতাশ জেলেরা।

ভোলার ইলিশা, তুলাতুলি, ভোলার খাল, দৌলতখানের চকিঘাট, হাকিমুদ্দিন মাছঘাটসহ প্রায় ১০টি মাছ ঘাট ঘুরে দেখা যায়, ঘাটগুলোতে জেলেদের হাকডাক। সবাই ব্যস্ত ইলিশ শিকারে। দুদিন পরেই মা ইলিশ রক্ষা অভিযান। তাই নষ্ট করার মতো সময় নেই তাদের হাতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *