চাঁদপুর জেলা বিএনপির পুরানো দ্বন্দ্বে মুখোমুখি অবস্থানে প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা

জেলার-খবর

নিউজ মিডিয়া ২৪: চাঁদপুর : চাঁদপুর জেলা বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল এবং দলীয় কর্মসূচি পালনে দুটি গ্রুপের পৃথক অবস্থান দীর্ঘ দিনের। কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে চাঁদপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সভা অর্থাৎ কর্মী সমাবেশ আয়োজনকে ঘিরে পুরানো সেই দ্বন্দ্ব আবারো মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। কেন্দ্রঘোষিত ১৩ এপ্রিল (আজকের) সাংগঠনিক মিটিং করা নিয়ে চাঁদপুরে মুখোমুখি অবস্থানে যায় জেলা বিএনপির সেই দুই গ্রুপ। এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিও ঘোষণা করা হয়। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক দিচ্ছেন এক গ্রুপের নেতৃত্ব। অপরদিকে চাঁদপুর জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা বিএনপির সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান ভূঁইয়া। জেলা পর্যায়ে বিএনপির কর্মী সমাবেশ ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক টিমের প্রধান গোলাম আকবর খন্দকারের আগমন নিয়ে রাজপথে সক্রিয় হয় এই দুই গ্রুপের নেতা-কর্মীরা। এই দু গ্রুপের সম্ভাব্য সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি এড়াতে অবশেষে গতকাল সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসন থেকে সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

উভয় গ্রুপের নেতা-কর্মীদের উপস্থিতি জেলা বিএনপি কার্যালয়ে দেখা না গেলেও ১১ এপ্রিল বুধবার বিকেলে উল্লেখিত এই দুই গ্রুপ মাত্র কয়েকশ’ গজ দূরত্বে শহরের নতুনবাজার এলাকায় পৃথক সভা করতে দেখা গেছে। নিজ বাসভবনে (মনিরা ভবন) শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক তাঁর অনুসারী নেতা-কর্মীদের নিয়ে জেলা বিএনপির প্রস্তুতি সভা করেন। অন্যদিকে নতুনবাজার মার্কেটে একই সময় শফিকুর রহমান ভূঁইয়া তাঁর গ্রুপের নেতা-কর্মীদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করেন।

এর আগে দুই গ্রুপের পক্ষ থেকে চাঁদপুর প্রেসক্লাবে সমাবেশ করার জন্যে প্রশাসনের কাছে লিখিত আবেদন করা হয়। কিন্তু প্রশাসনের অনুমতি মিলেনি চৈত্রসংক্রান্তি ও পহেলা বৈশাখের আনুষ্ঠানিকতার কারণে। ফলে চাঁদপুর প্রেসক্লাব নয়, কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে ওই সভা নিয়ে যাওয়া হয় জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকের বাসভবন (মুনিরা ভবন)-এ। এ ব্যাপারে জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডঃ সলিম উল্লাহ সেলিম বলেন, সেন্ট্রাল এবং স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আলাপ করেই আমরা জেলা বিএনপির কর্মী সমাবেশ মুনিরা ভবনে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের কোনো পক্ষ নেই, বিএনপি একটা। কেন্দ্রেও একটা, চাঁদপুরেও একটা।

অপরদিকে শফিক ভূঁইয়ার নেতৃত্বাধীন চাঁদপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী গোলাম মোস্তফা ও খলিলুর রহমান গাজী কর্মীদের সাথে মতবিনিময় সভায় বলেন, উড়ে এসে জুড়ে বসা নেতা বিএনপিতে দরকার নেই। শফিকুর রহমান ভূঁইয়া শহীদ জিয়ার আদর্শের তৃণমূল থেকে উঠে আসা দলের পরীক্ষিত এবং কারানির্যাতিত নেতা। বিএনপির ত্যাগী নেতা-কর্মীদের সাথে সমন্বয় না করে জেলা বিএনপির কোনো কর্মী সমাবেশ হতে পারে না। চাঁদপুরের সাবেক ৬ এমপি জেলা বিএনপিকে দুর্বল করা এবং দালালী নেতৃত্বের জন্যে বর্তমান কমিটি থেকে শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকের অপসারণ চেয়ে কেন্দ্রের কাছে লিখিত দিয়েছে। জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শাহনেওয়াজ খান বলেন, তিনমাসের জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি আজকে ৪ বছর যাবৎ নেতৃত্ব দিচ্ছে। এই কমিটির মেয়াদ নেই, এই কমিটি অবৈধ। তাদের অধীনে এককভাবে কেন্দ্রঘোষিত সাংগঠনিক সভা হতে দেয়া হবে না।

এমন পাল্টাপাল্টি বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ও অবস্থানের কারণে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন বর্ষবরণের প্রাক্কালে শান্তি শৃঙ্খলা স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে চাঁদপুর শহরের কোথাও জেলা বিএনপির আজকের কর্মী সমাবেশ আয়োজনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *