পরীক্ষার প্রথম দিন সারা দেশে ১৩ হাজার ৭১৮ পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত: রশ্নপত্রসহ ৫ শিক্ষার্থীকে আটক

শিক্ষা

নিউজ মিডিয়া ২৪:  ঢাকা : এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার প্রথম দিন সারা দেশে ১৩ হাজার ৭১৮ পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল; বহিষ্কার হয়েছেন ৭ জন পরিদর্শক ও ৮৯ পরীক্ষার্থী। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার এই তথ্য জানানো হয়। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক উপ-কমিটির আহ্বায়ক তপন কুমার সরকার জানান, এইচএসসিতে দুই বিষয়ে (সর্বোচ্চ চার পত্র) ফেল করলে পরের বছর শুধু ওইসব বিষয়ে পরীক্ষা দেওয়া যায়।

সোমবার এইচএসসিতে বাংলা প্রথমপত্র, সহজ বাংলা প্রথমপত্র, বাংলা ভাষা ও বাংলাদেশের সংস্কৃতি প্রথমপত্র এবং ডিআইসিএসে বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষা হয়েছে। আর মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলিমে কুরআন মাজিদ এবং কারিগরি বোর্ডে এইচএসসি ভোকেশনালে সকালে বাংলা-২ (সৃজনশীল নতুন/পুরাতন সিলেবাস) ও বিকালে বাংলা-১ (সৃজনশীল নতুন/পুরাতন সিলেবাস) পরীক্ষা হয়েছে।

এছাড়া কারিগরির ব্যবসায় ব্যবস্থাপনাতে সকালে বাংলা-২ (নতুন সিলেবাস) ও বাংলা-২ (পুরাতন সিলেবাস) এবং বিকালে বাংলা-১ (সৃজনশীল নতুন সিলেবাস) ও বাংলা-১ (সৃজনশীল পুরাতন সিলেবাস) এবং ডিপ্লোমা ইন কমার্সে সকালে হবে বাংলা-২ এবং বিকালে বাংলা-১ (সৃজনশীল) বিষয়ের পরীক্ষা হয়েছে।

প্রথম দিন ঢাকা বোর্ডে ২ হাজার ৪৮৯ জন, রাজশাহীতে ১ হাজার ২৫৬ জন, কুমিল্লায় ১ হাজার ১৯ জন, যশোরে ১ হাজার ৬১ জন, চট্টগ্রামে ৯৯৮ জন, সিলেটে ৭০৬ জন, বরিশালে ৬৫১ জন এবং দিনাজপুর বোর্ডে ১ হাজার ৬৩ পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল। এছাড়া মাদ্রাসা বোর্ডে ২ হাজার ৪৮৬ জন এবং কারিগরি বোর্ডে ১ হাজার ৯৮৯ পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

অন্যদিকে নকলের দায়ে কারিগরি বোর্ডে ৩২ জন, মাদ্রাসা বোর্ডে ৪০ জন, ঢাকা বোর্ডে ৭ জন, বরিশালে ৬ জন, দিনাজপুরে ২ জন এবং যশোর ও সিলেট বোর্ডে একজন করে পরীক্ষার্থী বহিষ্কার হয়েছেন। এছাড়া সিলেট বোর্ডে ৪ জন এবং কারিগরি বোর্ডে ৩ জন পরিদর্শককে বহিষ্কার করা হয়েছে। বাংলাদেশের দুই হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে সোমবার একযোগে শুরু হয়েছে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা, যাতে অংশ নিচ্ছেন ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী।

 

 

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলায় ভুয়া প্রশ্নপত্রসহ ৫ শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ।

 

এ দিকে ,রোববার গভীর রাত ও সোমবার সকালে উপজেলার ভাটিয়ারীর বিভিন্ন এলাকা থেকে আটক ওই শিক্ষার্থীদের ব্যবহৃত ফেসবুক অ্যকাউন্ট ও ম্যাসেঞ্জার থেকে এ প্রশ্নগুলো উদ্ধার করা হয়েছে।
পুলিশ জানিয়েছে, আটক ৩ শিক্ষার্থী ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র দেয়ার গুজব ছড়িয়ে প্রতারণার মাধ্যমে ৭/৮জন অভিভাবক থেকে টাকা নিয়েছেন।
আটক ৩ জন হলেন- ভাটিয়ারীর পূর্ব হাসনাবাদ গ্রামের আবু তালেবের ছেলে আবদুল্লা আল জামান (২০), একই এলাকার বিল্লাল হোসেনের ছেলে আল আমিন (১৯) ও রমজান আলী মেম্বার কলোনীর বাসিন্দা সাহেদুল হকের ছেলে আরিফ হোসেন (২০)।
আবদুল্লা আল জামান ও আরিফ হোসেন ভাটিয়ারী বিজয় স্মরণী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ও আল আমিন একই কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র। সবাই মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী।
সীতাকুণ্ড মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইফতেখার হাসান বলেন, সোমবার শুরু হয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা। এই পরীক্ষার ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র দেয়ার কথা বলে রোববার রাতে বিভিন্নজনকে ফেসবুক ও ম্যাসেঞ্জারে ক্ষুদে বার্তা পাঠায় আটকশিক্ষার্থীরা।
তিনি জানান, গোপনে খবর পেয়ে রোববার রাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত ভাটিয়ারীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত থাকায় ৩ শিক্ষার্থীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এসময় জব্দ করা হয় তাদের ব্যবহৃত ল্যাপটপ আর উদ্ধার করা হয় ভুয়া কিছু প্রশ্নপত্র আর সাজেশন।
থানার পুলিশ পরির্দশ (তদন্ত) মোজাম্মেল হক বলেন, আটক ৩ শিক্ষার্থী পুলিশকে জানিয়েছেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের কথা বলে পরীক্ষার্থী বা তাদের অভিভাবকদের টাকা হাতিয়ে দেয়ার জন্য এই কাজটি করেছে। অদৌ তাদের কাছে কোন প্রশ্নপত্র ছিলো না।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, ভাটিয়ারী বিজয় স্মরণী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, সীতাকুণ্ড বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ও সীতাকুণ্ড মহিলা কলেজে ১৬’শ ১২জন পরিক্ষাথীর মধ্যে ১৭জন অনুপস্থিত রয়েছে।
সীতাকুণ্ড উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মামুন বলেন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজব ছড়ানো বা প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো কোন ঘটনা ঘটেনি। থানায় থাকা প্রশ্নপত্র নেয়ার ক্ষেত্রে ও পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব পালনরত সকল কর্মকর্তাদের মোবাইল ব্যবহারেও রয়েছে বিধি নিষেধ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *